fbpx

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৪৩ প্রার্থীর জয় নির্বাচনকে ম্লান করেছে

Pinterest LinkedIn Tumblr +

এবারের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ভোটের টার্নআউট ভালো ছিল ৬৯ দশমিক ৩৪ ভাগ। কিন্তু বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচনে ইউনিয়ন পরিষদে ৪৩ জন প্রার্থী নির্বাচন না করেই চেয়ারম্যান পদে যাওয়ায়, নির্বাচনকে ম্লান করে দিয়েছে বলে মনে করছেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার।

এসময় তিনি বলেন, ৯টা পৌরসভায় তিনজন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় মেয়র নির্বাচিত হন। নির্বাচন যেহেতু অনেকের মধ্যে বাছাই, তাই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় পদে আসীন হওয়াকে নির্বাচিত হওয়া বলা যায় কি? এমনটাই প্রশ্ন রাখেন তিনি। নির্বাচন কমিশনার মনে করেন বহুদলীয় গণতন্ত্রের জন্য নির্বাচনে বহুদলের অংশগ্রহণ একান্ত প্রয়োজন।

২২ সেপ্টেম্বর (বুধবার) রাজধানীর নির্বাচন ভবনে পৌরসভা ও ইউপি নির্বাচন সম্পর্কে আমার কথা শিরোনামে এক বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মাহবুব তালুকদার ১৭ থেকে ২১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত  ছয়দিনের জন্য ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বলেন, নির্বাচনে তিনজনের প্রাণহানী ঘটেছে। এটা অত্যন্ত বেদনাদায়ক। জীবনের চেয়ে নির্বাচন বড় নয় জানিয়ে তিনি বলেন,নির্বাচনে ঘটনা বা দুর্ঘটনা যা-ই হোক না কেন, নির্বাচন কমিশনের ওপরই দায় এসে পড়ে।

তিনি বলেন, নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের কারণে একজন সংসদ সদস্যকে সতর্কবার্তা পর্যন্ত পাঠানো হয়েছে। প্রতিদ্বন্দ্বিতাহীন নির্বাচনের কারণ বিশ্লেষণ করে সে বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ অনিবার্য। ভোটারদের নির্বাচন বিমুখতাও আমার কাছে গণতন্ত্রের জন্য অশনিসংকেত মনে হয়। এর সঙ্গে নির্বাচন প্রক্রিয়া ও নির্বাচন ব্যবস্থাপনা জড়িত। এ অবস্থা থেকে উত্তরণ সার্বিকভাবে নির্বাচন কমিশনের ওপর নির্ভর করে না।

Share.

Leave A Reply