fbpx

ভোটার আইডি কার্ড দেখিয়ে ভ্যাকসিন নেবেন যেভাবে

Pinterest LinkedIn Tumblr +

দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের জনগণকে টিকার আওতায় আনতে, এবার ইউনিয়ন পর্যায়ে জাতীয় পরিচয়পত্র দেখিয়েই টিকা গ্রহণের ব্যবস্থা করেছে সরকার। অগ্র্রিম নিবন্ধন নয়, থাকছে টিকা কেন্দ্রে এসে সরাসরি নিবন্ধনের সুযোগ। জাতীয় পরিচয় পত্র না থাকলে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের প্রত্যয়নপত্র দেখিয়ে ১৮ বছরের বেশি যেকেউ নিতে পারবেন করোনাভাইরাস প্রতিষেধক টিকা।

৭ আগস্ট থেকে শুরু হওয়া টিকা কার্যক্রমের গুরুত্বপূর্ণ কিছু নির্দেশনা।

১. ৭ থেকে ১২ আগস্ট পর্যন্ত ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ে নির্ধারিত কেন্দ্রে সকাল ৯ টা থেকে বিকাল ৩ টা পর্যন্ত টিকা দেওয়া হবে।

২. ১৮ বছরের উর্ধ্বে যে কেউ নিতে পারবেন করোনা প্রতিষেধক টিকা।

৩. প্রথম ২ ঘণ্টা শুধু নারী ও ৫০ বছরের বেশি পুরুষদের টিকা দেওয়া হবে।

৪. সিটি করপোরেশন ও পৌরসভা এলাকার প্রতি ওয়ার্ডের টিকা কেন্দ্রেও চালু থাকবে এই কার্যক্রম।

৫. অগ্রিম নিবন্ধনের প্রয়োজন নেই, জাতীয় পরিচয়পত্র দেখিয়ে কেন্দ্রেই নিবন্ধন করা যাবে।

৬. যারা এরইমধ্যে অনলাইনে নিবন্ধন করেছেন, তারা নির্বাচিত কেন্দ্রে এসে টিকা গ্রহণ করতে পারবেন।

৭. যাদের ভোটার আইডি কার্ড নেই, তারা স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সুপারিশপত্র দেখালেই নিতে পারবেন টিকা।

৮. দ্বিতীয় ডোজের জন্য নিবন্ধন করা কাগজটি সংগ্রহ করতে হবে।

৯. দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার পর টিকা গ্রহণকারীরা পাবেন সার্টিফিকেট।

১০. টিকা পরবর্তী যেকোন শারীরিক অসুস্থতা দেখা দিলে নিকটস্থ স্বাস্থ্যকেন্দ্রে যোগাযোগের পরামর্শ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে টিকা গ্রহণের পাশাপাশি স্বাস্থ্যবিধি মানার পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকেরা। টিবি হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. আয়শা আক্তার বিবিএস বাংলাকে বলেন, দেশের বেশিরভাগ মানুষকে টিকার আওতায় আনতেই এই উদ্যোগ নিয়েছেন সরকার। জেলা শহরগুলোর পাশাপাশি টিকা দেওয়া হবে ইউনিয়ন পর্যায়েও। তবে টিকা নিলেই করোনা থেকে শতভাগ মুক্ত থাকা যাবে, এমন কোন গ্যারান্টি নেই। তাই করোনাভাইরাসের সংক্রমণরোধে সবাইকে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করা গেলেই মৃত্যু নিয়ন্ত্রণ করা যাবে।’

গ্রাম পর্যায়ে যাদের স্মার্টফোন নেই, ইন্টারনেট সুবিধা অথবা প্রিন্টিংয়ের সুবিধা নেই, তাদেরকে টিকার আওতায় আনতেই এই বিশেষ ব্যবস্থায় টিকা দেওয়ার সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে, জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক।

Share.

Leave A Reply