fbpx

যে আউট হতে চায়, তাকে কে বাঁচাবে?

Pinterest LinkedIn Tumblr +

শুক্রবার মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে মুখোমুখি আবাহনী-মোহামেডান। বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটের সবচেয়ে মর্যাদার লড়াই, আবাহনী-মোহামেডানের লড়াই। দুপুর দেড়টায় শুরু হওয়া ম্যাচে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন মোহামেডান অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। এ ম্যাচে রানে ফেরার ইঙ্গিত সাকিবের, কিন্ত ব্যাটিংয়ে ধুঁকেছেন ।

ছবি: বিসিবি

দশম ওভারে ক্রিজে আসেন সাকিব, প্যাভিলিয়নের পথ দেখেন ১৭তম ওভারে। মাঝখানে খেলেন ২৭বল, রান করেছেন ৩৭। যতক্ষণ খেলেছেন কখনোই সাবলীল মনে হয়নি, আত্মবিশ্বাসী মনে হয়নি। তবে এই রান সাকিবকে আত্মবিশ্বাস দেবে পরবর্তী ম্যাচের জন্য।

সাকিবের প্রথম রান আসে তৃতীয় বলে। আগের দুই বলেই ধুঁকেছেন। এক ওভার পরে কভার ড্রাইভ করে তিন রান, নিশ্চয়ই আশা জাগিয়েছিল সাকিবের মনে, আশা জাগিয়েছিল সাকিব ভক্তদের মনে। পরের ওভারে সাকিবের সামনে আরেক সাকিব, তানজিম সাকিব। জুনিয়র সাকিবের বলে রীতিমতো পরীক্ষা দিয়েছেন। পরের ওভারে আমিনুল বিপ্লবের পঞ্চম বলে স্লগ সুইপ করতে গিয়ে একটুর জন্য বেঁচেছিলেন, পরের বলে আবার সেই চেষ্টা আবার ব্যর্থ। যেন মনে হচ্ছে বাইশ গজের থেকে ড্রেসিংরুমই শ্রেয়!

১৫তম ওভারে আরাফাত সানিকে স্লগ সুইপ করে ছক্কা, যে ছক্কায় মিশে ছিল বড় রানের গন্ধ। পরের ওভারেও ছক্কা, আমিনুল বিপ্লবকে মারা ছক্কার গন্তব্যও একই- ডিপ মিড উইকেট। পরের ওভারে সাইফউদ্দিন আসলেন, স্ট্রেইট ড্রাইভ করে চার। পরের বলে লং অফে ক্যাচ তুলে দিলেন, তালুবন্দি করতে ব্যর্থ মোসাদ্দেক সৈকত। পরের বলে অফ স্ট্যাম্পের অনেক বাইরে করলেন সাইফ, অন সাইডে টেনে মারতে গিয়ে আবারো ক্যাচ তুলে দেন সাকিব- শর্ট থার্ডম্যানে ক্যাচ তুলে এবার আর বাঁচেননি। যে নিজে থেকেই আউট হতে চায়, তাকে আর কে বাঁচাবে?

Share.

Leave A Reply